এইমাত্র পাওয়া

x

ডজন প্রার্থী মাঠে তৎপর

সম্মেলন ঘীরে ছাত্রলীগের প্রাণচাঞ্চল্যতা

শনিবার, ০৩ আগস্ট ২০১৯ | ৫:০৩ অপরাহ্ণ | 798 বার

সম্মেলন ঘীরে ছাত্রলীগের প্রাণচাঞ্চল্যতা

সম্মেলন ও কাউন্সিলের মাধ্যমে জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি গঠনের জন্য কেন্দ্রিয় কমিটির নির্দেশনার পর থেকে সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী নেতাদের মধ্যে শুরু হয়েছে নানা মহলে দৌঁড়ঝাপ।

কেন্দ্রের নির্দেশ মত আগামী ২০ সেপ্টেম্বর জেলার সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে চুড়ান্ত ধরে নিয়ে কেন্দ্রিয় নেতাসহ সংশ্লিষ্ট মহলে শুরু করেছে দেন দরবার ও তদবির। এসব নেতাদের কেউ কেউ এখন পার করছে ব্যস্ত সময়। তারা কেন্দ্রের পাশপাশি জেলার নেতাকর্মি ও কাউন্সিলারদের মন জয়ের জন্য নানা কৌশলে তৎপরতাও চালিয়ে যাচ্ছে। এতে নতুন কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মিদের মধ্যে কর্মচাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানিয়েছে, নতুন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পদক পদ প্রত্যাশী এক ডজনের বেশী নেতার বিরামহীন তৎপরতায় আওয়ামী রাজনৈতিক মহলে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। কার বা কাদের আশীর্বাদপুষ্ট নেতারা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হচ্ছে। পদ প্রত্যাশীরাও জেলা ও কেন্দ্রিয় আওয়ামী লীগ এবং ছাত্রলীগের শীর্ষ পর্যায়ের নেতাদের আশীর্বাদ বা আনুকূল্য লাভের জন্য জোর তদবির চালিয়ে যাচ্ছে।

এ নিয়ে দ্বিধা-বিভক্ত হয়ে দেন দরবার এবং তদবিরে ব্যস্ত পদ প্রত্যাশীরা নেতারাও। তাদের কেউ কেউ ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় কমিটির সভাপতি রেজাওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং কেউ কেউ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর আশীর্বাদপুষ্ট বা আনুকূল্য লাভের জন্য ব্যতিব্যস্ত। এ নিয়ে নতুন জেলা কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশীরাও দ্বিধা-বিভক্ত তদবিরবাজিতে।

জেলা ছাত্রলীগের বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নতুন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ লাভে যে ধারায় দেন দরবার বা তদবিরবাজি চলছে; তাতে সুস্পষ্ট হয়ে উঠেছে দ্বিধা-বিভক্তির। এ নিয়ে এ ২ টি পদে নেতৃত্বে আসছে কেন্দ্রিয় কমিটির সভাপতির ও সাধারণ সম্পাদকের আশীর্বাদপুষ্ট যে কোন দু’জন।

তবে ছাত্রলীগের তৃণমূল নেতাকর্মিদের দাবি, দীর্ঘদিন ধরে ছাত্রলীগের রাজনীতি ও সাংগঠনিক প্রক্রিয়াসহ দলের আর্দশকে ধারণ করেছে এ ধরণের ত্যাগী নেতাকর্মিদের আগামীদিনের নেতৃত্বের হাল তুলে দেয়া হোক। যাতে করে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগকে দেশের একটি মডেল ইউনিট হিসেবে উপহার দেয়া যায়।

তৃণমূলের প্রত্যাশা, কোন অছাত্র, বিবাহিত, মাদক ব্যবসায়ি, মাদকাসক্ত, মামলার আসামী, চাঁদাবাজ ও দখলবাজসহ নানা অপরাধে জড়িত কেউ যেন নতুন জেলা কমিটির নেতৃত্বে আসতে না পারে।

এ ব্যাপারে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে কেন্দ্রিয় সংসদের সংশ্লিষ্ট নেতাদের প্রতি দাবি জানান তৃণমূলের নেতাকর্মিরা।

অন্যদিকে জেলা ছাত্রলীগ জানিয়েছে, কেন্দ্রিয় সংসদের নির্দেশনা মত আগামী ২০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে জেলা কমিটির সম্মেলন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নানা কর্মসূচী এবং সাংগঠনিক প্রক্রিয়া শুরুর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এরই আগে মেয়াদোত্তীর্ণ উপজেলা কমিটিগুলোর সম্মেলন ও কাউন্সিল সম্পন্ন করা হবে। এ নিয়ে আগামী কয়েকদিনের মধ্যে সাংগঠনিক তৎপরতা শুরু করা হবে।

প্রসঙ্গত, বিগত ২০১৪ সালের ১৩ ডিসেম্বর কক্সবাজার সাংস্কৃতিক কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হয় জেলা ছাত্রলীগের সর্বশেষ দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন ও কাউন্সিল। এতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় সংসদের নেতারা কোন ধরণের সিদ্ধান্ত দিতে না পারায় কমিটি ঘোষণা না দিয়ে শেষ হয়। তবে পরবর্তীতে ২০১৫ সালের ১০ জানুয়ারী ইশতিয়াক আহমেদ জয় সভাপতি এবং ইমরুল রাশেদ সাধারণ সম্পাদক করে একটি কমিটি ঘোষণা করা হয়।

কিন্তু বিগত ২০১৭ সালের ১০ জানুয়ারীই গঠনতন্ত্র মোতাবেক বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে। এ নিয়ে পরবর্তীতে তৎকালীন সময়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় সংসদের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ এবং সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বর্তমান জেলা কমিটির সম্মেলন ও কাউন্সিলের ঘোষণা দিলেও উদ্ভুদ রোহিঙ্গা সংকট এবং জাতীয় নির্বাচনের কারণে তা অনুষ্ঠিত করা সম্ভব হয়নি।

তবে কেন্দ্রিয় সংসদ বর্তমান মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা কমিটির সম্মেলন ও কাউন্সিল অনুষ্ঠানের জন্য ৬০ কার্যদিবস নির্ধারণ করে দিয়ে গত ৯ মে নির্দেশনা দিয়েছিল। কিন্তু বর্তমান কেন্দ্রিয় সংসদের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা নিয়ে সংশ্লিষ্টদের ব্যতিব্যস্ততার কারণে এ সময়ের মধ্যেও জেলা কমিটির সম্মেলন ও কাউন্সিল আয়োজন করা সম্ভব হয়নি।

পরবর্তীতে এ নিয়ে গত ৩০ জুলাই ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় নির্বাহী সংসদের এক সভায় আগামী ২০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে বর্তমান জেলা কমিটির সম্মেলন ও কাউন্সিল অনুষ্ঠানের জন্য কঠোর নির্দেশনা দিয়ে সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।

কেন্দ্রিয় সংসদের এ নির্দেশনা আসার পর থেকে জেলা কমিটির সম্মেলন ও কাউন্সিল আয়োজনে তৎপরতা শুরু হয়। এতে নতুন কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী নেতাদের পাশাপাশি জেলার তৃণমূলের নেতাকর্মিদের মাঝেও সৃষ্টি হয়েছে কর্মচাঞ্চল্য। ইতিমধ্যে নেতৃত্বে আসতে পদ প্রত্যাশী নেতারা নানা মহলে শুরু করেছে জোর লবিং ও তদবির। অনেকে ঘুম হারাম ব্যতিব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে। এ নিয়ে আওয়ামী রাজনৈতিক অঙ্গনে সৃষ্টি হয়েছে আলোচনার।

এদিকে মাঠে নতুন কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী বর্তমান জেলা কমিটি এবং উপজেলা কমিটির সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক সহ বিভিন্ন পদে থাকা এক ডজনেরও বেশী নেতার তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে গত কয়েকদিনে। তাদের সরব তৎপরতায় শুরু হয়েছে নানান গুঞ্জন। তৃণমূলের নেতাকর্মিসহ আওয়ামী রাজনৈতিক অঙ্গনে আলোচনা চলছে কারা আসছে আগামীদিনের নেতৃত্বে?

জেলা ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নতুন কমিটিতে সভাপতি পদে বর্তমান কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মারুফ ইবনে হোসেন ও ইব্রাহিম আজাদ বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, ও শাখাওয়াত হোসেন, শিক্ষা ও পাঠচক্র উপ-সম্পাদক মারুফ আদনান এবং কেন্দ্রিয় নেতা সরওয়ার আজম নেতৃত্বে আসতে জোর তৎপরতা, লবিং ও তদবির অব্যাহত রেখেছে।

একই ভাবে নতুন কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক পদে নেতৃত্বে আসতে মাঠে তৎপর রয়েছে সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল ইসলাম সাকিল, উপ-দপ্তর সম্পাদক ও কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সভাপতি মঈন উদ্দিন, ক্রীড়া সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন তুর্য্য, প্রচার সম্পাদক আলিফ উজ্জামান শুভ, আপ্যায়ন সম্পাদক কায়সার উদ্দিন রুবেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বোরহান উদ্দিন খোকন, সদস্য এহেসানুল হক মিলন এবং একমাত্র নারী প্রার্থী হিসেবে নারিমা জাহান।

তবে নতুন কমিটিতে নেতৃত্বে আসতে পদ প্রত্যাশী নেতারা যে যার মত করে তৎপরতা অব্যাহত রাখলেও তৃণমূলের নেতাকর্মিদের প্রত্যাশা আগামীতে এমন নেতৃত্ব আসুক, যারা কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগকে একটি মডেল ছাত্রলীগ ইউনিট হিসেবে উপহার দিতে পারবে।

এছাড়া সংগঠনের প্রতি ত্যাগী, নীতিনিষ্ঠ, আদর্শবান ও সৃজনশীলতার পাশাপাশি কোন ধরণের অপরাধের সঙ্গে জড়িত নয় এ ধরণের নেতৃত্ব নির্বাচনে কেন্দ্রিয় সংসদের সংশ্লিষ্ট নেতারা সতর্ক দায়িত্ব পালন করবেন; এমনটি প্রত্যাশাও তৃণমূলের নেতাকর্মিদের।

তৃণমূলের দাবি, কোন ধরণের লবিং ও তদবিরের মাধ্যমে নয়; প্রয়োজনে তৃণমূলের প্রত্যক্ষ মতামতের ভিত্তিতেই নেতৃত্ব নির্বাচিত করা হোক।

জেলা ছাত্রলীগের তৃণমূলের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মিদের সঙ্গে কথা জানা গেছে, তৃণমূলের নেতাকর্মিদের প্রত্যাশাগত এসব দিক বিবেচনায় নতুন কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী হিসেবে সর্বস্তরে গ্রহণযোগ্যতায় এগিয়ে রয়েছে বর্তমান জেলা কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মারুফ ইবনে হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল ইসলাম শাকিল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইব্রাহিম আজাদ বাবু, ক্রীড়া সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন তুর্য্য এবং উপ-দপ্তর সম্পাদক ও কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সভাপতি মঈন উদ্দিন প্রমুখ।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!