রাখাইন জলকেলী উৎসব

রাখাইন নববর্ষ উদযাপন ১৩৮১ঃ বুদ্ধ স্নানের মধ্য দিয়ে শুরু

রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০১৯ | ১২:৩২ অপরাহ্ণ | 285 বার

রাখাইন নববর্ষ উদযাপন ১৩৮১ঃ বুদ্ধ স্নানের মধ্য দিয়ে শুরু

কক্সবাজারে বুদ্ধ স্নানের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হতে যাচ্ছে সপ্তাহ ব্যাপী রাখাইন নববর্ষ উৎযাপন। অতীতের সকল গ্লানি ভুলে ১৩৮০ রাখাইনসনকে বিদায় জানিয়ে ভ্রাতৃত্ববোধের মাধ্যমে ভবিষৎ বির্নিমানে  ’ কে স্বাগত জানাতে বৌদ্ধ ধর্মালম্বীরা ঐতিহ্যবাহী জলকেলি সহ নানা ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।
এ উপলক্ষে শনিবার সকালে শহরের বার্মিজ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গন থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করে রাখাইন শিক্ষার্থীরা। বিভিন্ন রাখাইন পল্লী পদক্ষিণ শেষে কেন্দ্রীয় অগ্নমেধাস্থ মাহাসিংদোগ্রী মন্দিরে গিয়ে শেষ হয় এই শোভাযাত্রা। পরে বৌদ্ধ ভিক্ষুর কাছে ধর্মীয়প্রাথনা করে। যেখানে শিক্ষার্থীরা বৌদ্ধ ভিক্ষুদের নানা জিনিস পত্র দান করার পাশাপাশি পালন করেন পঞ্চশীল ও অষ্টশীল।
এরই মাধ্যমে সূচনা ঘটে আগামী ১৭ এপ্রিল থেকে ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত জাকঝমকভাবে অনুষ্টিত হতে যাওয়া সাংগ্রে পোয়ে বা জলকেলি উৎসবের। এই উৎসবকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে’ই রাখাইন পল্লীসহ প্রতিটি বাড়ি সাজছে নতুন সাজে। শিশু থেকে বৃদ্ধ বয়সী সবার মাঝে বিরাজ করছে আনন্দ।
নববর্ষ উপলক্ষে জলকেলী উৎসবের আয়োজকদের দেওয়া তথ্যে জানা যায়, এই উৎসবকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে’ই শহরের টেকপাড়া, হাঙ্গর পাড়া, বার্মিজ স্কুল এলাকা, চাউল বাজার, পূর্ব-পশ্চিম মাছ বাজার, আরপিএফ প্রাঙ্গন, ক্যাং পাড়া, বৈদ্যঘোনাস্থ থংরো পাড়ায় তৈরী করা হয়েছে জলকেলির ৩০ টি নান্দিক প্যান্ডেল। রঙ্গিন ফুল আর নানা কারুকাযে ফুটিয়ে  তোলা হয়েছে প্যান্ডেলের চারপাশ। রাখাইনদের মাঝে চলছে বর্ষবণের আমেজ। ছোট থেকে শুরু করে বড়রাও ব্যস্থ নতুন কাপড় কেটাকাটায়।
প্রতি বছরের মত এবারেও জলকেলীর দিন রাখাইন তরুন-তরুনীরা নতুন ও ঐতিহ্যবাহী আকর্ষণীয় পোষাক পরে সেজেগুঁজে রাস্তায় মোড়ে মোড়ে এবং রাখাইন পল্লীতে তৈরী করা জলকেলি উৎসবের প্যান্ডেলে একে অপরকে পানি নিক্ষেপ করে উৎসবে মেতে উঠবে। উৎসবে ঢাক-ঢোল আর কাঁসার তালে-তালে নেচে-গেয়ে আনন্দে মেতে উঠবে রাখাইন সহ সকাল সম্প্রদায়ের লোকজন।
বাংলার ঐতিহ্যের সাথে মিশে যাওয়া, এই উৎসবের ব্যাপারে সাবেক সংসদ সদস্য অধ্যাপিকা এথিন রাখাইন জানান, রাখাইন সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যবাহি জলকেলী’র মাধ্যমে সকল পাপ মুচে পুরোনো ও জীর্ণতা মুছে পরষ্পরের মাঝে জল ছিটিয়ে নব উদ্যোমে নতুত্বকে বরণ করা হয়।
উৎসবকে কেন্দ্র করে জোরদার করা হয়েছে নিরাপত্তা। নিরাপত্তা প্রদানের বিষয়ে কক্সবাজার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল হোসাইন জানান, বাংলার ঐতিহ্যবাহী রাখাইনদের জলকেলি উৎসব উপলক্ষে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পুলিশের পাশাপাশি দায়িত্ব পালন করবে র‌্যাব সহ অন্যান্য আইনশৃংখলা বাহিনী।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!