এইমাত্র পাওয়া

x

ব্রিজ নেই, সাঁকোই ভরসা ৩ ইউনিয়নের মানুষের

মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৫:০৭ অপরাহ্ণ | 127 বার

ব্রিজ নেই, সাঁকোই ভরসা ৩ ইউনিয়নের মানুষের

কক্সবাজার সদরের চৌফলদন্ডী ডিসি রোড হয়ে জালালাবাদ ইদ্রিসপুর দিয়ে ঈদগাঁও ইউনিয়নের দুই নাম্বার ওয়ার্ড উত্তর মাইজ পাড়ার উপর দিয়ে অবস্থিত মাইজ পাড়া-মেহের ঘোনা নাছির সাঁকো। ওই খালের উপর দিয়ে যাতায়াত তিন ইউনিয়নের ১২/১৫ গ্রামের প্রায় হাজার হাজার মানুষ। খালের দু’পাশেই প্রায় আড়াই-তিন হাজার মানুষ অবস্থিত। ওই খালের ঘাটে একটি ব্রিজের অভাবে দীর্ঘদিন ধরে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন এলাকার তিনটি ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ। গুরুত্বপূর্ণ উত্তর মাইজ পাড়া-মেহের ঘোনার ওই পয়েন্টে সেতু না থাকায় গ্রাম ঠিকাদারের তৈরি কাঁঠের সাঁকো পার হতে প্রতিদিন দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসা পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রী ও এলাকাবাসীর।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, ঈদগাঁও ইউনিয়নের গজালিয়া-ভোমরিয়াঘোনা, শিয়া পাড়া, মুরা পাড়া, পাল পাড়া, কানিয়া ছরা, পশ্চিম ভাদিতলা, বার আউলিয়ার দরগা, ভজ্ঞম্মার পাড়া, মেহেরঘোনা কলেজ গেইট উত্তর মাইজ পাড়া, মধ্যম মাইজ পাড়া, দক্ষিন মাইজ পাড়া, ঘোনা পাড়ার সুইচ গেইটের চৌফলদন্ডী ইউনিয়ন দিয়ে খালটি সাগরে চলে গেছে। ওই রোড দিয়ে মাইজ পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাইজ পাড়া নুরুল উলুম মাদ্রাসা, ৩/৪টি হাফেজ খানা, কয়েকটি নুরানি মাদ্রাসা, আলমাছিয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসা, ইউনিছিয়া তাহফিজুল কোরান মাদ্রাসা ও এতিম খানা, ঈদগাহ কেজি স্কুল। আবু বক্কর ছিদ্দিক (রাঃ) মাদ্রাসা, মেহের ঘোনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়। ঈদগাহ ফরিদ আহমদ ডিগ্রি কলে, ফ্রী ক্যাডেড স্কুল অ্যান্ড কলেজ, শাহ জাব্বারিয়া দাখিল মাদ্রাসা, মহিলা মাদ্রাসা ও কয়েকটি কিন্ডার গার্ডেন স্কুল। প্রতিদিন এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রী শিক্ষক ও সাধারণ মানুষকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ওই সাঁকো দিয়ে পারাপার করতে হয়। এলাকাবাসী জানান, আমরা ঠিক মতো শিক্ষা, চিকিৎসা ও হঠাৎ করে কেউ অসুস্থ হয়ে পড়লে বা অন্তঃসত্ত্বা নারীদের হাসপাতালে নেওয়ার জন্য কোনো যানবাহন পারাপারের ব্যবস্থা নেই, ফলে এসব রোগীদের নিয়ে হাসপাতালে নিতে চরম বিপাকে পড়তে হয় আমাদের।আমাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন কাঁঠের সাঁকো পার হয়ে স্কুলে যেতে হয়। গত জুলাই মাসে আমাদের মধ্যে এক ছাত্রী বিদ্যালয়ের থেকে বাড়ি ফেরার সময় সাঁকো থেকে পা পিছলে নদীতে পড়ে যেতে চেয়েছিল। তবে খালের তীরের কাছাকাছি মানুষ থাকায় সে প্রাণে বেঁচে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দা মহিলা মেম্বার নুর জাহান বলেন, আমাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন কাঁঠের সাঁকো দিয়ে পারাপার হতে হয়। তাছাড়া এই সাঁকো দিয়ে কৃষি পণ্যসহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য পরিবহন করা খুবই কষ্টসাধ্য। ফলে আমরা উৎপাদিত পণ্য ঠিকমতো আনা-নেওয়া করতে পারি না বলে দৈনিক দৈনন্দিনকে জানান, আরো বলেন, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের একজন চেয়ারম্যান মহুদয় রয়েছেন, এবং ঈদগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের একজন চেয়ারম্যানও রয়েছেন দু’জনেরই বাড়ি মাইজ পাড়ায়, তাদের বাড়ির পাশের একটি সেতুর জন্য দীর্ঘদিন ধরে এই এলাকার মানুষের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তাই দুই অভিভাবকদের কাছে আমাদের চাওয়া; হাজারও মানুষের দুর্ভোগের বিষয়টি ভেবে এই অর্থবছরেই যেন নাছিখালের ওপর কাঁঠের সাঁকোর পরিবর্তে একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হয় এলাকাবাসীর দাবি ।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!