ব্রিজ আছে, সংযোগ সড়ক নেই !

বুধবার, ৩০ অক্টোবর ২০১৯ | ৬:৪১ অপরাহ্ণ | 67 বার

ব্রিজ আছে, সংযোগ সড়ক নেই !

ব্রিজ নির্মাণের অর্ধযুগ পেরিয়ে গেলেও সংযোগ সড়ক না হওয়ায় ভোগান্তি যায়নি বান্দরবানের লামা উপজেলার গজালিয়া ইউনিয়নের রেমং মেম্বার পাড়া সহ আশপাশের কয়েক গ্রামের মানুষের। রেমং মেম্বার পাড়া সংলগ্ন ফারাঙ্গা খালের ওপর ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে লামা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে ব্রিজটি নির্মাণ করে। এদিকে ব্রিজ নির্মাণ করা হলেও সড়ক না থাকায় ব্রিজটি জনগণের কোন কাজেই আসছে না বলে জানান স্থানীয়রা।
সূত্র জানায়, ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয় ব্রিজটি নির্মাণ করে। কিন্তু ব্রিজের উভয় পাশে মাটি ভরাট ও

গাইড ওয়াল না থাকায় সুবিধার পরিবর্তে এখন সেটি তিন শতাধিক কোমলমতি শিক্ষার্থীসহ পাঁচ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্ষা মৌসুমে খালের পানির স্রােতের টানে ব্রিজের উভয় পাশ থেকে মাটি সরে গিয়ে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বর্ষা মৌসুমে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বিদ্যালয় যাওয়া অসম্ভব হয়ে পড়ে। এ নিয়ে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছে সাধারণ মানুষের মধ্যে। দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত ব্রিজের উভয় পাশে গাইডওয়াল নির্মাণসহ উঁচু করে মাটি ভরাটের জোর দাবী জানান ভুক্তভোগী পাঁচ গ্রামের বাসিন্দা।

রেমং মেম্বার পাড়ার কারবারী মং মং মার্মা অভিযোগ করে জানায়, ব্রিজটি নির্মাণের ছয় মাস পর খালের পানির স্রোতে দুই পাশের সংযোগ সড়ক ভেসে যায়। যার কারণে ব্রিজ থাকা সত্ত্বেও চলাচল করা যাচ্ছে না, ফলে স্থানীয়দের কষ্টের শেষ নেই। আরো জানা যায়, লামার দুর্গম পাহাড়ি রেমং মেম্বার পাড়ার পশ্চিম পাশে রয়েছে ফারাঙ্গা নামের একটি খাল। এ খাল পাড়ি দিয়েই রেমং মেম্বার পাড়াসহ আশপাশের পাঁচ গ্রামের শিক্ষার্থীদের যেতে হয় বিদ্যালয়ে। এ খাল পার হয়েই স্থানীয়দের বিভিন্ন কাজে যেতে হয় ইউনিয়ন ও উপজেলা সদর, পাশের আজিজনগর ইউনিয়নসহ চকরিয়া, লোহাগাড়া উপজেলায়। বর্ষা মৌসুমে পানিতে ভরপুর থাকে খালটি। তাই শুস্ক মৌসুমে এ খাল পাড়ি দিয়ে কোন মতে যাতায়াত করা গেলেও বর্ষা মৌসুমে তা মোটেও সম্ভব হয়না।

এই ব্যাপারে স্থানীয় থোয়াইচিং মং মার্মা ও এবাথোয়াই মার্মা জানান, ব্রিজের ওপর দিয়ে এলাকার কৃষক তাদের জমিতে কৃষি পণ্য উৎপন্ন করে বাজারজাতকরণ করে থাকেন।

এ বিষয়ে গজালিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বাথোয়াইচিং মার্মা জানান, কর্মসৃজন কর্মসূচীর মাধ্যমে রেমং মেম্বার পাড়া সংলগ্ন ব্রিজটির উভয় পাশে মাটি ভরাট করা হয়েছিল। কিন্তু বর্ষায় পানির স্রোতের টানে তা ভেসে নিয়ে গেছে।
এ ব্যাপারে লামা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. মজনুর রহমান বলেন, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে ফারাঙ্গা

খালের ওপর ব্রিজ নির্মাণ করা হয়, খালের পানির স্রোতের টানে মাটি সরে গেছে। নতুন প্রকল্পের মাধ্যমে পূণরায় ব্রিজের উভয় পাশে গাইডওয়াল নির্মাণ ও মাটি ভরাট করে দেয়া হবে।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!