এইমাত্র পাওয়া

x

পেকুয়ায় পাহাড়ী ছড়া নিয়ে বিরোধ, মিথ্যা মামলায় হয়রানীর অভিযোগ

শনিবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ৫:৩৮ অপরাহ্ণ | 101 বার

পেকুয়ায় পাহাড়ী ছড়া নিয়ে বিরোধ, মিথ্যা মামলায় হয়রানীর অভিযোগ

পেকুয়া উপজেলার টইটং ইউনিয়নে পাহাড়ী ছড়া নিয়ে বিরোধের জেরে এক নিরহ পরিবারকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছেটইটং ইউনিয়নের বটতলি ঝুমপাড়া এলাকার মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে আবু ছৈয়দ সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিযোগ করেন।

আবু ছৈয়দ বলেন, আমার পিতা মারা গেছে বহু বছর আগে। আমর মা ভাই বোনদের নিয়ে খুব কষ্ট করে সংসার করেছেন। এছাড়াও পিতার রেখে যাওয়া জমি রক্ষা করতেও কষ্ট সহ্য করতে হয়েছে। মায়ের কষ্ট দূর করতে আমরাও কঠোর পরিশ্রম করে যাচ্ছি। ভাইয়েরা লেখাপড়া করার জন্য চট্টগ্রামে অবস্থান করে। ইতোমধ্যে একই এলাকার প্রবাসী নেছার আহমদের স্ত্রী ছফুরা বেগম আমাদের বাড়ি সংলগ্ন পানি চলাচলের পাহাড়ি ছড়া দখল করে বন্ধ করে দেন। এর ফলে আমরাসহ এলাকাবাসী জলাবদ্ধতায় কষ্ট পাচ্ছিলাম। বাড়ি ঘরেও পানিতে ডুবে থাকতো। বেশ কয়েকবার এবিষয়ে আমরা স্থানীয় ইউপি সদস্য ও চেয়ারম্যানকে অবগত করেছি।

গত ১৬ জুলাই ছফুরা বেগম দলবল নিয়ে আবারো ছড়াটি দখল করে রাস্তা করতে যায়। আমরা গ্রামবাসীরা এতে বাধা দেই। আমরা বিষয়টি চেয়ারম্যানকে অবগত করলে তিনি দুই পক্ষকে শান্ত থাকার আহ্বান জানান। তারা চেয়ারম্যানের কথা অমান্য করে ওই বাড়ির বৃদ্ধা রশিদা বেগমকে ভিকটিম সাজিয়ে পেকুয়া থানায় একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। সেদিন এরকম কোন ঘটনা ঘটেনি বলে এলাকাবাসী তদন্তকারী কর্মকর্তাকে অবগত করেন। ওই মামলা চলমান থাকার পরও গত ২১ জুলাই কক্সবাজার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় ছফুরা বেগম আমি ও আমার ছোটভাই আবুল কালামের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ করেছেন। আমরা দুই ভাই নাকি তাকে এক সাথে ধর্ষণ চেষ্টা করেছি। এরকম একটি মিথ্যা মামলা দায়ের হওয়ার পর এলাকাবাসী হতবাক হয়ে পড়েছেন। এ ঘটনা আমরাও বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ি। অথচ সেই মহিলার বয়স কম হলেও ৪৫ বছর হবে। মায়ের বয়সী একজন মহিলা কিভাবে মিথ্যা ও জঘন্য কথা বলতে পারে। একের পর এক মিথ্যাভাবে মামলা দিয়ে আমাদের হয়রানির চেষ্টা করছে ওই মহিলা। এব্যাপারে আমরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সহ স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি।

এদিকে ছফুরা বেগম দাবী করেন স্বামী প্রবাসে থাকায় তাকে নানাভাবে হয়রানী করছে একই এলাকার মৃত নুরুল ইসলামের ছেলে আবু ছৈয়দ, আবুল কালাম, মৌলভী হাশেম ও আবু ছিদ্দিক। তারা তার চলাচল রাস্তা দখলের অপচেষ্টা চালাচ্ছেন। এর জের ধরে তার শাশুড়ি রশিদা বেগম ও তার উপর হামলা চালায় তারা। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হলে ক্ষিপ্ত হয়ে ছফুরা বেগমকে ধর্ষণ চেষ্টা করেন আবু ছৈয়দ ও আবুল কালাম।

ছফুরা বেগম বলেন, প্রায় এক দশক আগে আমি জমি ক্রয় করে চলাচলের রাস্তা তৈরি করি। সম্প্রতি এটি দখলে নিতে তারা পাহাড়ী ছড়াটির একাংশ মাঠি ভরাট করে দখলে নিয়েছে। এতে আমার বাড়িসহ আশেপাশের অনেক বাড়িতে অতিবৃষ্টির ফলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছিল। এর প্রতিবাদ করায় তারা আমার উপর এসব নির্যাতন শুরু করেছে। তাই আইনের আশ্রয় নিয়েছি।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!