এইমাত্র পাওয়া

x

বাজার সিন্ডিকেটের নাটের গুরু ‘মোস্তাক’

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি : ব্যবসায়ীকে এক লাখ টাকা জরিমানা

শুক্রবার, ০৪ অক্টোবর ২০১৯ | ২:২৮ অপরাহ্ণ | 408 বার

পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি : ব্যবসায়ীকে এক লাখ টাকা জরিমানা

মিয়ানমার থেকে আগত পেঁয়াজের দাম ৫০ টাকা ও ভারত বা অন্যান্য দেশ থেকে আমদানি করা পেঁয়াজের দাম ৭০ টাকা নির্ধারণ করেছে কক্সবাজার জেলা প্রশাসন। এ নিয়ে ব্যবসায়ী নেতাদের সঙ্গে দফায় বৈঠক করেন জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। কিন্তু কোন সুফল আসেনি। কারণ ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি করছে বলে অভিযোগ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের। আর এর নাটের গুরু হিসেবে তাদের কাছে চিহ্নিত শহরের বড় বাজরের মোস্তাক ট্রেডার্সের মালিক মোস্তাক আহমদ।

কিন্ত বৃহস্পতিবার (৩ অক্টোবর) ঝটিকা বাজার পরিদর্শনে যান জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন। বাজারের পরিস্থিতি দেখে তিনি নিজেও হতবাক। বার বার সেই মোস্তাককে প্রশ্ন রাখছিলেন আপনারা ব্যবসায়ীদেরকে জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্তের কথা জানাননি। কিন্তু উত্তরে কিছুই বলতে পারছিলেন না মোস্তাক। শুধুই বলছিলেন আমরা জানিয়েছি। কিন্তু বাজার পরিস্থিতি তা বলছে না।

অভিযানের পেছনে গিয়ে জেলা প্রশাসন যে অভিযানে নেমেছে তা ফোন করে তার সিন্ডিকেটের অন্যান্য ব্যবসায়ীদের জানিয়ে দেয় মোস্তাক। তার জন্য তিনি জেলা প্রশাসনের পরিদর্শনস্থল থেকে বার বার পিছিয়ে যায়। পিছিয়ে গিয়েই মূলত ফোন করে জেলা প্রশাসকের অবস্থান জানান অন্যান্য ব্যবসায়ীদের কাছে।

অভিযানকালে নির্ধারিত দামের চেয়ে বেশী দামে পেঁয়াজ বিক্রি করায় ইসমাইল ট্রেডার্স নামে এক প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। এসময় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে মিয়ানমার থেকে আমদানি পেঁয়াজ ৫০ ও ভারতের পেয়াজ ৭০ টাকা মূল্যে বিক্রির নির্দেশ দেয়া হয়। অভিযানে ইসমাইল ট্রেডার্সের কর্মচারীরা ৫০ টাকার পেঁয়াজ ৮৫ টাকায় বিক্রি করছে ক্রেতাদের অভিযোগের ভিত্তিতে ওই প্রতিষ্ঠানকে এক লাখ টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে তিন মাসের জেল প্রদান করেন ভ্রাম্যমান আদালত।

ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, মোস্তাকদের সিন্ডিকেট দমন করা না গেলে পেঁয়াজের দাম কমানো কঠিন হয়ে পড়বে। মোস্তাকরা শুধু পেঁয়াজ নয় ব্যবসায়ী নেতার প্রভাব কাটিয়ে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সামনে ফুটপাত দখল করে দোকান বসান তিনি। সেখান থেকে প্রতিদিন চাঁদা আদায়ের অভিযোগও রয়েছে। অথচ অভিযানকালে তিনি ফুটপাতের সকল ব্যবসায়ীকে লাল দাগের ভেতরে চলে যেতে বলেন। অর্থাৎ তিনি ম্যাজিষ্ট্রেট আসলে লাল দাগের ভেতর অন্যথায় ফুটপাতেই থাকবে সেটি বোঝান।

তবে, জেলা প্রশাসকের প্রশ্নের জবাবে মোস্তাক আহমদ বলেন, এগুলো তারা উঠিয়ে নেবে স্যার। হয়তো না বুঝে করেছে। ফুটপাত দখল করার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোন উত্তর দিতে পারেননি।

কিন্তু জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন বলেন, মিয়ানমার থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ ৫০ টাকার বেশী বিক্রির কোন সুযোগ নেয়। আর অন্যান্য দেশ থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ ৬০-৭০ টাকা বিক্রি করতে হবে। কিন্তু কিছু অসাধু ব্যবসায়ী তারও বেশী দামে পেঁয়াজ বিক্রি করছে। তাই আজকে আমাদের এ অভিযান।

ফুটপাত দখল নিয়ে তিনি বলেন, প্রতি সপ্তাহে একবার ম্যাজিষ্ট্রেট আসবেন। আর ফুটপাতে যা পাবে সব ট্রাকে নিয়ে যাবে। এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে কর্মকর্তাদের উদ্যোগ নিতে বলেন।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে অভিযানে আরও উপস্থিত ছিলেন, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (বস্ত্র সেল) তৌফিকুর রহমান, কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. আশরাফুল আবছার, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাখন চন্দ্র সুত্র ধর, কক্সবাজার পৌরসভার কাউন্সিলর মো. মাহবুবুর রহমানসহ অন্যান্যরা।

আবরারের মৃত্যু আমাদের অনেক কিছু শিখিয়ে দিয়ে গেল – ইশতিয়াক আহমেদ
দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!