পর্যটন নগরীর প্রবেশদ্বার মহাসড়কে জলাবদ্ধতা

মঙ্গলবার, ৩০ এপ্রিল ২০১৯ | ১:৩৪ অপরাহ্ণ | 269 বার

পর্যটন নগরীর প্রবেশদ্বার মহাসড়কে জলাবদ্ধতা

শুরু হয়েছে বৈশাখ। আবহাওয়া অধিদপ্তরও ঘনঘন ঝড়ের পূর্বাভাস দিচ্ছেন। আকাশে বৃষ্টিভরা মেঘ দৌঁড়াচ্ছে এপাশ ওপাশ। এসব দেশে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন কক্সবাজারবাসী। কারণ কক্সবাজার সদর উপজেলা গেইট তথা পর্যটন নগরীর প্রবেশদ্বারে প্রতি বছর বর্ষায় যে মারাত্মক জলাবদ্ধতা সৃষ্টি তার কোন সুরাহা এখনো হয়নি। মাস দেড়েক পরেই বর্ষা শুরু হবে। তাছাড়া বৈশাখ-জৈষ্ঠ মাসেও বৃষ্টিপাত, ঝড়-তুফান হয় এদেশে। সব মিলিয়ে চরম উৎকণ্ঠায় দিন পার করছে সদর উপজেলা পরিষদের আশপাশের লোকজন।

প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে মাত্র আধা ঘন্টার বর্ষণে কক্সবাজার সদর উপজেলা গেইট টার্মিনাল পর্যন্ত মহাসড়কে থৈ থৈ পানিতে ডুবে যায়। টার্মিনাল এবং তার পাশ্ববর্তী এলাকা। এতে যান চলাচল দৈনিক দুই তিন বার বন্ধ হয়ে যায়। ফলে মহাসড়কে লেগে যায় দীর্ঘ যানজট। কোন যাত্রী, পর্যটক, কোন মূমুর্ষ রোগীর চলাচলের সুযোগ থাকেনা। মহাসড়কের দক্ষিণ পাশে অবস্থিত দেশের শীর্ষস্থানীয় দ্বীনি নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কক্সবাজার আদর্শ মহিলা কামিল মাদরাসা ও ছৈয়দিয়া বালিকা এতিমখানা এবং কারিগরী ইন্সটিটিউট সহ পাশ্ববর্তী বিশাল এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়।

পানি চলাচলের একমাত্র উপায় মহাসড়ক সংলগ্ন ছরাটি (নালা) দীর্ঘদিন ধরে অপব্যবহার ও ড্রেসিং না করায় ক্রমান্বয়ে ভরাট হয়ে যাওয়ায় এই খরার মৌসুমে মাদরাসা এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এখনো বেশ কয়েকটি জায়গায় ময়লা আবর্জনাযুক্ত পানিতে সয়লাব হয়ে আছে।

স্থানীয়রা জানান, কক্সবাজার সদর উপজেলাস্থ বাজার এলাকার নালা গুলো সরকারী উদ্দোগে সংস্কার করা হয়। এছাড়া প্রচুর অর্থ ব্যয়ে একটি ব্রীজও নির্মিত হয়। তারপরও পানি নিষ্কাশন সম্ভব হচ্ছেনা। কারণ মহাসড়কের উত্তর দিকে পৌর এলাকার ৫ নং ওয়ার্ড দিয়ে বয়ে যাওয়া ছরাটি বহু আগে থেকে নিশ্চিহ্ণ হয়ে গেছে। বর্তমানে ওই ছরাটির কোন অস্থিত্ব বিদ্যমান। কারণ তাও বেদখলে চলে গেছে।

উপজেলা বাজারস্থ ব্যবসায়ী আবদুর রহমান জানান, বর্ষা মৌসুমে উত্তরণ আবাসিক এলাকা এবং তার পাশ্ববর্তী পশ্চিম লারপাড়া, পূর্ব লারপাড়া সহ বিস্তীর্ণ এলাকার পাহাড়ী ঢল ও বর্ষার পানি মহাসড়ক সংলগ্ন ছরা দিয়ে প্রবাহিত হয়। কিন্তু ছরাটি ভরাট হয়ে যাওয়ায় এসব পানি মহিলা মাদরাসা এবং এতিমখানা ক্যাম্পাস ও উপজেলা বাজারস্থ মহাসড়কের উপরে জমে থাকে।

ফলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে তৈরি হয় দীর্ঘ যানজট। এতে ঢাকাসহ সারাদেশ থেকে সড়ক যোগে আসা যাত্রীদের অবণণীয় দূর্ভোগ পোহাতে হয়। কক্সবাজার সরকারী কলেজ, হার্ভার্ড কলেজ, পাশ্ববর্তী মহিলা মাদরাসার স্কুল, কলেজ, মাদরাসার শিক্ষার্থী পোহাতে চরম দূর্ভোগ।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন এটির দ্রুত সংস্কার করা না হলে আসন্ন বর্ষায় আবারো পুরোনো দূর্ভোগ নতুন করে পোহাতে হবে কক্সবাজাবাসীকে।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2020

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!