নতুন বছরে নতুন বই, আনন্দিত শিশুরা

বৃহস্পতিবার, ০২ জানুয়ারি ২০২০ | ৪:৪৫ অপরাহ্ণ | 75 বার

নতুন বছরে নতুন বই, আনন্দিত শিশুরা

কক্সবাজারের প্রস্তাবিত শেখ রাসেল শিশুপার্ক মাঠজুড়ে হাজারো শিশুর সমাগম। সবার হাতে নতুন বই। আনন্দে উদ্বেলিত তারা। কখনো হর্ষধ্বনি দিয়ে উঠছিল। কখনো একসঙ্গে বই উঁচু করে দেখাচ্ছিল। কখনো হাতে থাকা জরি নাড়াচাড়া করছিল। এ যেন কোলমতি শিশুদের মাঝে এক অন্য রকম উৎসব।
গতকাল (০১ জানুয়ারি) নতুন বছরের প্রথম দিনে এমনই দৃশ্য ছিল কক্সবাজার জেলায় প্রস্তাবিত শেখ রাসেল শিশু পার্ক প্রাঙ্গনে। অনুষ্ঠিত হলো ‘শিশু সমাবেশ ও বই উৎসব ২০২০’ এর।
এমনিতে প্রকৃতিতে শৈত্যপ্রবাহের আবহ, তারপর গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি। সেই গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি উপেক্ষা করে নতুন বছরে নতুন বই নিতে সমবেত হয়েছিল শিশুরা।
সারাদেশের ন্যায় বছরের প্রথম দিনে কক্সবাজারেও শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দিতে ব্যতিক্রমী এই উৎসবের আয়োজন করে জেলা প্রশাসন।
এছাড়া বই উৎসব ও শিশু সমাবেশে আগত প্রত্যেক শিক্ষার্থীকে পাঠ্যপুস্তকের পাশাপাশি কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ড. জাফর ইকবাল রচিত ‘মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস’ শীর্ষক বই উপহার হিসেবে শিশুদের হাতে তুলে দিয়েছেন অতিথিরা।
বই বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার-সদর রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল।
কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের সভাপতি বই উৎসবে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এড. সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আশরাফুল আফসার, কক্সবাজার সদর উপজেলা চেয়ারম্যান কায়সারুল হক জুয়েল, কক্সবাজার সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ফজলুল করিম চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আমিন আল পারভেজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আদিবুল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এএইচএম মাহফুজুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান, সাবেক পৌর চেয়ারম্যান নুরুল আবছার প্রমূখ।
মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার জেলায় ২০২০ সালে ৮ লাখ ৬৪ হাজার ২৮৯ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে জবিতরণের জন্য বরাদ্দ রাখা হয় ৭৫ লাখ ১৩ হাজার ৪৮২টি নতুন বই।
এর মধ্যে মাধ্যমিক স্তরে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫ লাখ ৩৩ হাজার ৩২৫ জন। এতে বই বরাদ্দ রাখা হয় ৬০ লাখ ৫ হাজার ২৫৪টি বই।
অন্যদিকে প্রাথমিক স্তরের ৩ লাখ ৩০ হাজার ৯৬৪ শিক্ষার্থীদের জন্য ১৫ লাখ ৮ হাজার ২২৮টি।
জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, বই উৎসবের জন্য জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে গেল বছরের নভেম্বর থেকে শুরু হয় বই পৌঁছানোর কাজ।
॥ ইসলামিক ফাউন্ডেশন ॥
ইসলামিক ফাউন্ডেশন কক্সবাজারের আওতায় পরিচালিত মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কাযর্ক্রমের কক্সবাজার সদর উপজেলায় চলমান ১৭৩ টি শিক্ষা কেন্দ্রের শিক্ষার্থীদের মাঝে ২০২০ শিক্ষা বর্ষের নতুন বই বিতরণ উপলক্ষে ‘‘বই উৎসব‘‘ সদর উপজেলা ফিল্ড সুপারভাইজার হাফেজ আবুল ফয়েজের সভাপতিত্বে ১ জানুয়ারি সকাল ১০টায় ইসলামিক ফাউন্ডেশন কক্সবাজার মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইফা উপ-পরিচালক ফাহমিদা বেগম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফিল্ড অফিসার ফজল করিম। জেলা কার্যালয়ের কম্পিউটার অপারেট মাসুদ রানার সঞ্চালনায় সভার বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইফা সহকারী পরিচালক সরওয়ার আকবর। অনুষ্ঠান শেষে সদর উপজেলার ১৭৩ টি শিক্ষা কেন্দ্রের ৫৭৪০ জন শিক্ষার্থীর মাঝে ২০২০ শিক্ষাবর্ষের নতুন বই বিতরণ করা হয়।
॥ রামু ॥
কক্সবাজার-৩ (সদর-রামু) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব সাইমুম সরওয়ার কমলের সহধর্মিনী বিশিষ্ট ব্যবসায়ি, শিক্ষানুরাগী ও সমাজ সেবিকা সৈয়দা সেলিনা সরওয়ার বলেছেন, সুশিক্ষিত জাতি গঠনের মাধ্যমেই দেশকে এগিয়ে নেয়া সম্ভব। এজন্য শেখ হাসিনার সরকার বছরের প্রথম দিনে সারাদেশে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও মাদ্রাসা সমূহে বিনামূল্যে বই বিতরণ করে আসছে। এরপাশাপাশি সরকার উপ বৃত্তি প্রদানসহ আরো নানান শিক্ষাবান্ধব প্রকল্প বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। সরকারের পাশাপাশি অভিভাবক, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মানসম্মত শিক্ষা অর্জনে ভূমিকা রাখতে তিনি আহবান জানান।
সৈয়দা সেলিনা সরওয়ার বুধবার (১ জানুয়ারি) রামু উপজেলার বাঁকখালী উচ্চ বিদ্যালয় ও সাইমুম সরওয়ার কমল উচ্চ বিদ্যালয়ে বই বিতরণ উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। সকাল ১১ টায় বাঁকখালী উচ্চ বিদ্যালয় উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল আমিনের সভাপতিত্বে আয়োজিত বই বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, ফতেখাঁরকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফরিদুল আলম, বাঁকখালী উচ্চ বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদের নির্বাহী পরিচালক ও কাউয়ারখোপ হাকিম রকিমা উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কিশোর বড়–য়া, রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নীতিশ বড়–য়া, রামু কলেজের শিক্ষক কন্ঠশিল্পী মানসী বড়–য়া, সাংবাদিক সোয়েব সাঈদ প্রমূখ। অনুষ্ঠানে সদ্য প্রকাশিত জেএসসি পরীক্ষার ফলাফলে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ১২ জন শিক্ষার্থীকে সংবর্ধিত করেন প্রধান অতিথি সৈয়দা সেলিনা সরওয়ার। অনুষ্ঠানে গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, অভিভাবক, বিদ্যালয়ের শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
একই দিন বেলা ১২ টায় সৈয়দা সেলিনা সরওয়ার কাউয়ারখোপ ইউনিয়নের উখিয়ারঘোনা এলাকায় প্রতিষ্ঠিত সাইমুম সরওয়ার কমল উচ্চ বিদ্যালয়ে বই বিতরণ করেন এবং এ উপলক্ষ্যে আয়োজিত বই বিতরণ উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।
বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য শামসুল আলম সভাপতির বক্তব্যে বিদ্যালয়ের উন্নয়নে প্রধান অতিথি এমপি কমল পতœী সৈয়দা সেলিনা সরওয়ারকে বিদ্যালয়ের প্রধান পৃষ্টপোষক হওয়ার আহবান জানালে তিনি বিদ্যালয়ের উন্নয়নে সার্বিক সহযোগীতার আশ্বাস দিয়ে বিদ্যালয়ের জন্য একটি কম্পিউটার প্রদানের ঘোষনা দেন। বিদ্যালয়ের অন্যান্য সংকট নিরসনে তিনি ব্যক্তি উদ্যোগে পর্যায়ক্রমে সহায়তার আশ^াস প্রদান করেন।
অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আতিকুর রহমান। সিনিয়র শিক্ষক মিজানুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, রামু উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক নীতিশ বড়–য়া, সাংবাদিক সোয়েব সাঈদ, বিদ্যালয় পরিচালনা পরিষদের সদস্য নুরুল ইসলাম, সাবেক মেম্বার সিরাজুল ইসলাম খুইল্যা মিয়া, রাজ মোহন বড়–য়া, নুর আহমদ, ছৈয়দ আলম, সাবেক মেম্বার আবুল হোছন, হাজ¦ী আনোয়ার প্রমূখ। অনুষ্ঠানে বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক উমর ফারুক, মুজিব উল্লাহ, মহি উদ্দিন, জুলেখা বেগম, রোজিনা আক্তার, মুমতাহিনা নাছরিন, শাহিনা আকতার, অফিস সহায়ক তকি উদ্দিনসহ এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, অভিভাবক, বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন।
॥ উজানটিয়ায় এ.এস আলিম মাদ্রাসা ॥
পেকুয়া উপজেলায় উজানটিয়া ইউনিয়নস্থ এ.এস আলিম মাদ্রাসায় বই বিতরণ উৎসব সম্পন্ন হয়েছে। বুধবার(১জানুয়ারী)মাদ্রাসা হল রুমে বই বিতরণ উৎসব অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। মাওলানা নুরুল হক মকসুদীর সভাপতিত্বে বই বিতরণ উৎসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, পেকুয়া থানার ওসি কামরুল আজম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সুনাম অর্জনকারী সাংবাদিক আনন্দ টিভির বিশেষ প্রতিবেদক ওই এলাকার বাসিন্দা এম.এম আকরাম হোছাইন।
পরে শিক্ষার্থীদের মাঝে বই বিতরণ করেন উপস্থিত অতিথিসহ শিক্ষকবৃন্দরা।
॥ লামায় নতুন বই পেল ১৩০টি বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ॥
লামা উপজেলায় ১০১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ২৯ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের হাতে বছরের প্রথম দিনে নতুন বই তুলে দেয়া হয়েছে। বছরের প্রথম দিন নতুন বই পেয়ে আনন্দে আত্মহারা শিক্ষার্থীরা। “শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ” এই শ্লোগানকে সামনে রেখে সারা দেশের ন্যায় লামা উপজেলায় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের হাতে তুলে দেয়া হয় নতুন পাঠ্য বই।
উপজেলা মাধ্যমিক ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবার উপজেলার ১০১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ২৭ হাজার ৪৮জন শিক্ষার্থীর হাতে ১ লাখ ১৫হাজার ৩২৮টি ও ২৯টি মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ভোকেশনাল, মাদ্রাসা, ইবতেদায়ী এবং দাখিল শ্রেণির ৮ হাজার ৯শত শিক্ষার্থীর হাতে ১লাখ ৫৫ হাজার ৫০টি বই তুলে দেয়া হয়েছে। গত ১১ বছর ধরে প্রতিবছরই ১লা জানুয়ারীতে নতুন বই শিশুদের হাতে তুলে দেয়া হয়। দিনটি বই উৎসব হিসেবে পালন করা হয়।
বেলা ১১টায় লামা আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে উৎসবমূখর পরিবেশে সকল শিক্ষার্থীদের মাঝে বই বিতরণ উৎসব করা হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত রুমি। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, লামা উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল। আরো উপস্থিত ছিলেন, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ সদস্য ফাতেমা পারুল, লামা পৌরসভা মেয়র মো. জহিরুল ইসলাম, ভাইস চেয়ারম্যান মো. জাহেদ উদ্দিন, মিলকি রাণী দাশ, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. গাউছুল আজম, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তপন কুমার চৌধুরী, লামা আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ.এম. ইমতিয়াজ, লামা ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষক এম. ইমতিয়াজ।
বেলা ১২টায় নুনারবিল সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে এক বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে বই বিতরণ করা হয়। এসময় সভাপতির বক্তব্য রাখেন, লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ জান্নাত রুমি। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের ৫৬ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করেছেন। এর ফলে প্রাথমিক শিক্ষার মান বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিশুদের জন্য আনন্দপূর্ণ করে তুলছি। ২০৪১ সালে আমাদের এসব শিশুরা সোনার বাংলা গড়ে তুলবে। বছরের প্রথম দিন সারাদেশের ন্যায় লামা উপজেলার প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের হাতে বিনামূল্যে বই তুলে দেয়া হয়।
॥ টেকনাফ ॥
ইংরেজী নতুন বছরের প্রথমদিনে নতুন বইয়ের আনন্দে মাতোয়ারা ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা। সারাদেশের ন্যায় টেকনাফ উপজেলায় প্রথম থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণ করা হয়েছে।বুধবার সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্টানে বিনামূল্যে পাঠ্যবই বিতরণ উৎসব শুরু হয়। উপজেলা কমপ্লেক্স আদর্শ বিদ্যালয় ও দমদমিয়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আলোর পাঠশালা ‘বই উৎসব’ আয়োজন করা হয়েছে।পাশাপাশি উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্টানেও বই উৎসব অনুষ্টিত হয়েছে।উপজেলা কমপ্লেক্স আদর্শ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা লতিফা বেগমের সভাপতিত্বে উৎসবে প্রধান অথিতি ছিলেন উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা ইউএনও মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম,উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা ফেরদৌস আহমদ জমিরী, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এমদাদ হোসেন চৌধুরী,আবুল ইসলাম প্রমূখ।এসময় ১২০জন শিক্ষাথীর মাঝে নতুন বই তুলেন উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা ইউএনও।
অপরদিকে,দমদমিয়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আলোর পাঠশালার পরিচালনা পর্ষদে সভাপতি ফরিদুল আলমের সভাপতিত্বে বই উৎসবে উপস্থিত ছিলেন প্রথম আলোর টেকনাফ প্রতিনিধি সাংবাদিক গিয়াস উদ্দিন, জসিম মাহমুদ, ছৈয়দুল আমিন, শিক্ষক রবিউল আহমদ ও মো.মিল্লাদুন্নবী প্রমূখ।এসময় স্কুলে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণী পযন্ত ১১২জন শিক্ষাথীর হাতে নতুন বই তুলে দেওয়া হয়েছে।
ইউএনও মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন,বছরের প্রথমদিন সকল শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন।আনন্দ ও উৎসবমুখর পরিবেশে বছরের শুরুতে সর্বস্তরের শিশু-কিশোর শিক্ষার্থীরা পাঠ্যপুস্তক উৎসব শামিল হয়ে হাতে হাতে বই নিয়ে ঘরে ফিরেছেন এটি হচ্ছে সরকারের সফলতা।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2020

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!