প্রধান সড়কে যানজটের লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না

ট্রাফিক পুলিশের কোটি টাকার চাঁদাবাজী

মঙ্গলবার, ৩০ এপ্রিল ২০১৯ | ১:৩০ অপরাহ্ণ | 472 বার

ট্রাফিক পুলিশের কোটি টাকার চাঁদাবাজী

অবৈধ, অনুমোদন বিহীন ও অতিরিক্ত গাড়ী চলাচলের ফলে পর্যটন শহর কক্সবাজারে প্রতিনিয়ত যানজট লেগে থাকলেও মূলত: ট্রাফিক পুলিশের কোটি টাকার মাসোহারা আদায়ের কারণেই এর লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না।

এতে দেশের পর্যটনের প্রধান কেন্দ্র কক্সবাজার শহর পরিণত হয়েছে যানজটের নগরীতে; বিরূপ প্রভাব পড়ছে পর্যটন শিল্পের উপরও।

নানা সূত্রে নিশ্চিত হওয়া গেছে, ট্রাফিক পুলিশের কাছে চাহিদা টাকা দিলেই অবৈধ গাড়ী তাৎক্ষণিক বৈধ হয়ে যায়। ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের পাশাপাশি স্থানীয় পর্যায়ে পরিবহন সংশ্লিস্টদের নিয়ে একটি সিন্ডিকেট গড়ে তুলে শহরের বিভিন্ন মোড় কেন্দ্রিক প্রতিদিন তো বটেই মাসোহারাও আদায় করা হচ্ছে। তাছাড়া শহরের ট্রাফিক কার্যালয়ের পাশাপাশি স্পট কেন্দ্রিক চাঁদা আদায়ও রূপ নিয়েছে বেপরোয়াভাবে। এতে অবৈধ গাড়ীর পাশাপাশি বৈধ গাড়ী ও চালকদেরও হয়রানি হতে হচ্ছে; এমন অভিযোগ দীর্ঘদিনের।

সরেজমিন শহরের বিভিন্ন মোড় ঘুরে দেখা গেছে, শহরের বেশকিছু মোড়ে ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা রাস্তায় গাড়ী থামিয়ে কাগজপত্র চেক করার নামে প্রতিনিয়ত চাঁদা আদায় করে যাচ্ছে। এতে অবৈধ গাড়ী ও চালকেদের পাশাপাশি বৈধরাও বাদ যাচ্ছে না। তাদের চাঁদা আদায়ের ধরণ ঠিক যেন, ‘আকাশের যত তাঁরা, ট্রাফিক পুলিশের তত ধারা’ । সামান্য ছুঁতো পেলেই আদায় করা হচ্ছে মোটা অংকের টাকা। বৈধ হলেও টাকা না দিয়ে রেহাই মিলছে না ; এমন অভিযোগ চালকদের।

ভূক্তভোগী চালক ও মালিকদের ট্রাফিক পুলিশের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের অভিযোগ রয়েছে, রাস্তায় চলাচলকারি যানবাহন তো বটেই; পাশাপাশি মোটর সাইকেল, ইজিবাইক, অটোরিক্সা, ব্যাটারী চালিত রিক্সা, বাস-মিনিবাস, ট্রাক-মিনিট্রাকের টার্মিনাল এবং কাউন্টার কেন্দ্রিকও চলে চাঁদাবাজী। এতে স্পট কেন্দ্রিকের পাশাপাশি মাস ভিত্তিকও চাঁদা আদায় করা হয়ে থাকে। বৈধ হলে হাজার থেকে অন্তত ১০ হাজার এবং অবৈধ হলে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকা পর্যন্তও চাঁদা।

অভিযোগ রয়েছে, গাড়ী ধরা বাণিজ্যে হাত রেখে কোটি টাকার মালিক হয়েছেন কক্সবাজার ট্রাফিক পুলিশের ইনচার্জ (প্রশাসন) কামরুজ্জামান বকুল। তার হাতেই চরম হয়রানীর শিকার হচ্ছে সাধারন চালকরা। ভুক্তভোগী অনেকে উপর মহলে লিখিত অভিযোগ করেও কোন ধরণের সন্তোষজনক সমাধান পাননি বলেই হয়রানির শিকার হলেও এখন আর অভিযোগ দিতে চাননা।
বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছেন, সাধারন চালক ও মালিককে জিম্মি করে টাকা আদায়ের মহোৎসব চলছে। চাহিদা মতো টাকা দিলে আটক হওয়া গাড়ী ছেড়ে দেওয়া হয় অন্যথায় কপালে জুটে মামলা নামক হয়রানী। এসব কারণে ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ। তারা এসবের দ্রুত প্রতিকার চান।

এসবের পেছনে সরাসরি নেতৃত্ব দিচ্ছেন ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর বিনয় কুমার বড়ুয়া (বিকে বড়–য়া) ও কামরুজ্জামান বকুল। তাদের নেতৃত্বে টিএসআই মো. ইউসূফসহ ১০ জনের একটি টিম পুরো কক্সবাজার শহরের বিভিন্ন মোড়ে মোড়ে বিভিন্ন যানবাহন থেকে এমন চাঁদাবাজি চালিয়ে যাচ্ছে।

টাকা না দিলে সেটা অবৈধ ও মামলার হুমকি দেয়া হয় আর টাকা দিলে মুহুর্তের মধ্যে সেই গাড়ী বৈধ হয়ে যায়। এভাবে প্রতিনিয়ত ২০ হাজার ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে অর্ধশতাধিক যানবাহন ছেড়ে দেয় ট্রাফিক পুলিশ। কাগজপত্র ছাড়া গাড়ীকে বলা যায় এক প্রকার টাকার মেশিন। এতে টাকা আদায়েও সুবিধা হয় দেদারচ্ছে।

এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক ভুক্তভোগী চালক এ প্রতিবেদককে জানান, কলাতলী থেকে তার সিএনজি অটোরিক্সার কাগজপত্র চেক করার নামে নিয়ে আসা হয় ট্রাফিক পুলিশ কার্যালয়ে। এরপর আসতে থাকে শুধুই মামলার হুমকি। কিন্তু ৫ হাজার টাকা দিতেই গাড়ীটি আর অবৈধ থাকেনি। কয়েক মিনিটের মধ্যে টাকা দেওয়ায় অবৈধ গাড়ীটি হয়ে যায় বৈধ। প্রতিনিয়ত কাগজপত্র সঠিক থাকলেও হয়রানি আর না থাকলেও হয়রানি; এ যেন রীতি হয়ে পড়েছে ট্রাফিক পুলিশের।

কিন্তু সরেজমিন দেখে সবচেয়ে অবাক হওয়ার বিষয় হচ্ছে, ট্রাফিক পুলিশের আদায় করা প্রতিমাসের মোটা অংকের টাকার ভাগ পৌঁছে পুলিশের উপরি মহলেও। ভূক্তভোগী গাড়ীর চালক ও মালিক প্রতিনিয়ত হয়রানি এবং চাঁদাবাজীর শিকার হলেও তারা অভিযুক্ত ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে কোন ধরণের প্রতিকারের ব্যবস্থা নিতে চান না। কারণ পরবর্তীতে আবারো একই ধরণের হয়রানি করার হুমকির ভয় দেখিয়ে ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা। এমন হুমকির মুখে কেউ সাংবাদিকদের কাছেও বা কোন ধরণের অভিযোগ দিতে চান না; কারণ তাদের আবারো হয়রানির ভয় পিছু লেগে থাকে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, কক্সবাজারে ট্রাফিক পুলিশের চাঁদা উত্তোলনের জন্য একটি ছক তৈরি করেছে। ছক অনুযায়ী পরিবহন মালিকদের কাছ থেকে নির্ধারিত পরিমান টাকা আদায় করা হয়ে থাকে। হয়রানির ভয়ে ট্রাফিক পুলিশের দাবিকৃত টাকা দিতে হচ্ছে পরিবহন চালক ও মালিকদের।

ট্রাফিক পুলিশের ছক অনুযায়ী, দৈনিক ও মাসোহারা আদায়ে কাজ করছে পরিবহন সংশ্লিষ্ট সংঘবদ্ধ একটি চক্র। এরা প্রতিমাসে কক্সবাজার শহরের ভোলা বাবুর ফিলিং ষ্টেশনে আসা বিভিন্ন এলাকার সিএনজি অটোরিক্সাগুলো থেকে ২ হাজার ৪ শ‘ টাকা, শহরের চলাচলরত প্রতি ইজিবাইক (টমটম) থেকে ১২ শ‘ টাকা, জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা সিএনজি অটোরিক্সা থেকে ১২ শ‘ টাকা। আর এসব টাকা তুলতে নেতৃত্বে রয়েছে কবির, জসিম ও লিয়াকত নামে কতিপয় ব্যক্তি। বিশেষ করে ভোলা বাবুর ফিলিং ষ্টেশনের কবিরের নেতৃত্বে তোলা হয় ট্রাফিক পুলিশের নামে চাঁদার এ টাকা।

পরিবহন চালক ও মালিকরা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানিয়েছেন, প্রতিমাসে ইউনিক পরিবহন, সোহাগ পরিবহন, হানিফ পরিবহন, সৌদিয়া, এস.আলম, গ্রীনলাইন, টিআর পরিবহন, দেশ ট্রাভেলস, তিশা পরিবহণ, শ্যামলী পরিবহন, টেকনাফ রোডে চলাচল করা নাফ স্পেশাল সার্ভিসসহ এসব বাসের মালিকদের কাছ থেকে কাউন্টার প্রতি ২০ হাজার টাকা করে চাঁদা নেয় ট্রাফিক পুলিশ।

এছাড়া প্রতিমাসে ট্রাক মালিক সমিতির কাছ থেকে ৪০ হাজার টাকা, ২টি সিএনজি সমিতি থেকে ২০ হাজার টাকা করে ৪০ হাজার টাকা, ঈদগাহ রোডে চলাচল করা মাইক্রোবাসের থেকে ১০ হাজার টাকা, চকরিয়া রোডের মাইক্রোবাসের নাসিরের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা, রামু লাইন ও কক্সলাইন থেকে ৭ হাজার টাকা, ঈদগাহ লাইন থেকে ৩ হাজার টাকা, বিভিন্ন রুটের চলাচল করা চাঁদের গাড়ি থেকে গাড়ী প্রতি ৩ হাজার টাকা, উখিয়া রুটে চলাচল করা ছারপোকা গাড়ির জনৈক হেলাল উদ্দিনের মাধ্যমে ৫ হাজার টাকা, খুরুশকূল-চৌফলদন্ডি রোডের জনৈক দেলোয়ার হোসেনের মাধ্যমে ৫ হাজার টাকা চাঁদা উঠিয়ে নেন।

জেলার সচেতন মহলের অভিযোগ, ট্রাফিক পুলিশের চাঁদা আদায় বন্ধ না হলে পর্যটন শহর কক্সবাজারের যানজট নিরসন সম্ভব হবে না। এতে শহরটি যানজটের নগরীতে পরিণত হওয়ায় বিরূপ প্রভাব পড়ছে পর্যটন শিল্পের উপরও; পর্যটকদের ভোগান্তির কারণে দিন দিন তারা কক্সবাজার বিমুখ হতে বাধ্য হবে। তাই পর্যটন শিল্পের স্বার্থে যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশের চাঁদাবাজীর লাগাম টেনে ধরা জরুরী।

এ ব্যাপারে জানতে কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ট্রাফিক) বাবুল চন্দ্র বণিকের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করেও কোন ধরণের সাড়া না দেয়ায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।

তবে এ নিয়ে ট্রাফিক পুলিশের ইন্সপেক্টর মো. কামরুজ্জামান বকুলের সঙ্গে কথা হলে বলেন, ট্রাফিক পুলিশের নামে সিন্ডিকেট গড়ে তুলে চাঁদা বা মাসোহারা আদায়ের বিষয়টি সঠিক নয়। যদি কেউ তা করে থাকে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
কামরুজ্জামান বলেন, কক্সবাজার শহরে ট্রাফিক পুলিশের পক্ষে যানজট নিরসন করা একা সম্ভব নয়।

এ জন্য জেলা প্রশাসন, উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, পৌরসভা ও ট্রাফিক পুলিশের সমন্বিত উদ্যোগ জরুরী। কারণ যত্রতত্র গড়ে উঠা গাড়ী পার্কিংগুলো অনুমতি দিয়েছে পৌর কর্তৃপক্ষ। এছাড়া শহরের প্রধান সড়কে ব্যাংক-বীমাসহ বেশকিছু প্রতিষ্ঠান থাকায় সেগুলোর সেবাগ্রহীতাদের গাড়ীগুলোর রাস্তার উপরেই পার্কিং করে থাকে। পাশাপাশি ইজিবাইক ও ব্যাটারী চালিত গাড়ীগুলোও চলাচলের অনুমতি দিয়েছে পৌর কর্তৃপক্ষ।

যানজটের জন্য ট্রাফিক পুলিশের উপর রাজনৈতিক নেতাদের চাপও অন্যতম কারণ বলে মন্তব্য করেন ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তা কামরুজ্জামান।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!