এইমাত্র পাওয়া

x

চকরিয়ায় মন্দিরের জমি জবর দখল চেষ্টার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০১৯ | ১২:৩৮ অপরাহ্ণ | 222 বার

চকরিয়ায় মন্দিরের জমি জবর  দখল চেষ্টার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

চকরিয়ায় সার্বজনীন হরি মন্দিরের জমি জবর দখল চেষ্টা ও দুই পুজারী নারীকে আহত করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে সম্প্রদায়ের লোকজন। মঙ্গলাবার (১৬ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলার ডুলাহজারা ইউনিয়নের মালুমঘাট সুয়াজানিয়া দক্ষিণ পাড়ায় মন্দির সংলগ্ন (জলদাশ পাড়ায়) এলাকায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন তারা।
বিক্ষোভ কালে মন্দির কমিটির সভাপতি মনিন্দ্র জলদাশ বলেন, অভিযুক্তরা প্রকাশ্য দিবালোকে হামলা, ভাংচুর ও ভয়ভীতি প্রদর্শন অব্যাহত রেখেছেন। পুকুরে পূজা করতে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলায় আহত হয়েছেন তাদের দুইজন পূজারী নারী। তিনি আরো বলেন, তাদের সার্বজনীন মন্দিরটি সরকারের ধর্মমন্ত্রণালয়ের হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের অনুমোদনপ্রাপ্ত তালিকাভূক্তি নং কক্স/২০৯/১১। এমনকি মন্ত্রণালয় থেকে মন্দিরের জন্য সরকারিভাবে অনেক বরাদ্দও পেয়েছেন।
তিনি বলেন হামলাকারী ওই এলাকার মৃত কালা রাম জলদাশের পুত্র ফুলমোহন জলদাশ, মৃত কাশিরাম জলদাশের পুত্র অন্তর জলদাশ, ফুলমোহন জলদাশের পুত্র সজল জলদাশ, নিকুঞ্জু জলদাশের পুত্র চিত্তমোহন জলদাশ, ফুলমোহন জলদাশের পুত্র কাজল জলদাশ, মৃত ফুলিন জলদাশের পুত্র মঙ্গল জলদাশ, ফুল মোহন জলদাশেল পুত্র শিমুল জলদাশ, আনন্দ জলদাশের পুত্র খোকন জলদাশসহ অজ্ঞাত আরো কয়েকজনকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।
ডুলাহাজারা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড এমইউপি রফিক আহমদ বলেন, অভিযুক্তরা সম্পূর্ণ অন্যায়ভাবে সার্বজনীন হরিমন্দির বৈধ মালিকানাধীন পুকুরের জমি জবর দখলে নেওয়ার পায়াতারা চালিয়েছে। মন্দির কমিটি ও জলদাশ সম্প্রদায়ের পক্ষ থেকে ওই জমি চাওয়ায় একজন মুসলিম হিসেবে স্থানীয় মৃত খলিলুর রহমানের পুত্র নুরুল হোছন বিগত ২০১৭সনের ৬ নভেম্বর চৌহর্দ্দী সহকারে ওই ১৪শতক জমি মন্দিরের জন্য দান করেন। এছাড়া অপরাপর ২৮জন ব্যক্তি আরো ২৩ কড়া জমি মন্দিরে দিয়েছেন। এরপরও করে জগন্নাত মন্দিরের নাম ভাঙ্গিয়ে জমি দাবী করলে তা হবে সম্পূর্ণ অন্যায়।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ঘটনার বিষয়ে তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রেখেছেন। তিনি বিষয়টি পূজা উদযাপন পরিষদের নেতাদের সাথে কথা বলে সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!