চকরিয়ায় ধর্ষণ মামলার আসামী বন্দুকযুদ্ধে নিহত

মঙ্গলবার, ১২ মে ২০২০ | ২:৫৬ অপরাহ্ণ | 77 বার

চকরিয়ায় ধর্ষণ মামলার আসামী বন্দুকযুদ্ধে নিহত

চকরিয়ায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ধর্ষণ মামলার এক আসামী নিহত এবং পুলিশের তিন সদস্য আহত হয়েছে; ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে আগ্নেয়াস্ত্র ও গুলি।

মঙ্গলবার ভোররাতে চকরিয়া উপজেলার কোনাখালী ইউনিয়নের মরংঘোনা এলাকায় এ গোলাগুলির ঘটনা ঘটে বলে জানান চকরিয়া থানার ওসি মো. হাবিবুর রহমান।

নিহত সাজ্জাদ হোসেন পেকুয়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের কিল্লাঘোনা এলাকার আবুল হোসন ওরফে পুতুর ছেলে।

সে একজন অটোরিক্সা চালক।

গত ৬ মে রাতে কক্সবাজারে বাড়ীতে ফেরার জন্য চট্টগ্রাম থেকে এবিসি আঞ্চলিক মহাসড়ক দিয়ে পেকুয়া বাজারে পৌঁছান চম্পা বেগম (১৯) নামের এক তরুণী। পরে সেখান থেকে গাড়ী বদল করে চকরিয়ার উদ্দ্যেশে এক অটোরিক্সায় উঠেন কক্সবাজার সদর উপজেলার খরুলিয়া এলাকার এ তরুণী।

এক পর্যায়ে চকরিয়া উপজেলার কোনাখালী ইউনিয়নের মরংঘোনা এলাকায় পৌঁছলে চলন্ত গাড়ী থেকে চম্পা বেগমকে ছুড়ে ফেলে দিয়ে হত্যা করা হয়।

পরে ওইদিন রাত ১২ টার দিকে খবর পেয়ে সড়কের পাশে জখমপ্রাপ্ত অবস্থায় তরুণী চম্পা বেগমের মৃতদেহ পুলিশ উদ্ধার করে।

পুলিশ জানিয়েছে, এ ঘটনার পরদিন নিহত তরুণীর পিতা বাদী হয়ে চকরিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে মামলা হত্যা মামলা দায়ের করে। পরে গত ৭ মে ঘটনায় জড়িত সন্দেহে র‌্যাব-১৫ কক্সবাজারের একটি দল জয়নাল আবেদীন নামের পেকুয়ার কিল্লঘোনা এলাকার বাসিন্দা আরেক অটোরিক্সা চালককে গ্রেপ্তার করে। তাকে চকরিয়া থানায় হস্তান্তর করা হলে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনায় জড়িতদের নাম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

ওসি হাবিবুর বলেন, সোমবার সকালে পেকুয়ার স্থানীয় জনতা তরুনী ধর্ষণ ঘটনায় জড়িত প্রধান সন্দেহভাজন আসামী সাজ্জাদ হোসেনকে নিজ এলাকার বাড়ী থেকে ধৃত করে। পরে পেকুয়া থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। পেকুয়া থানার পুলিশ পরে তাকে চকরিয়া থানায় হস্তান্তর করে।

ওসি বলেব, ” প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সাজ্জাদ পুলিশের কাছে ঘটনায় জড়িত থাকার সবিস্তার বর্ণনা দেয়। পরে তার স্বীকারোক্তি মতে মঙ্গলবার ভোররাতে তাকে নিয়ে চকরিয়ার কোনাখালী ইউনিয়নের মরংঘোনা এলাকায় অস্ত্র উদ্ধার এবং ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযানে গেলে গোলাগুলির এ ঘটনা ঘটেছে। ”

হাবিবুর বলেন, সাজ্জাদকে নিয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তার সহযোগীরা উপস্থিতি টের পেয়ে অতর্কিত গুলি ছুড়তে থাকে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি ছুড়ে। এতে সহযোগীদের গুলিতে সাজ্জাদসহ ৩ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে।

” এসময় ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়েছে দেশিয় তৈরী ২ টি বন্দুক, ৬ টি গুলি ও কয়েক রাউন্ড গুলির খালি খোসা। ”

ওসি বলেন, ” গুলিবিদ্ধদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। এসময় হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক সাজ্জাদকে মৃত ঘোষণা করেন। ”

নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান হাবিবুর।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2020

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!