কক্সবাজার সদর হাসপাতালে আইসিইউ-এইচডিইউ ইউনিটের উদ্বোধন

শনিবার, ২০ জুন ২০২০ | ৬:৪৬ অপরাহ্ণ | 41 বার

কক্সবাজার সদর হাসপাতালে আইসিইউ-এইচডিইউ ইউনিটের উদ্বোধন

ককক্সবাজার সদর হাসপাতালে চালু হয়েছে ১০ শয্যার আইসিইউ ও ১০ শয্যার এইচডিইউ ইউনিটের চিকিৎসা সেবার কার্যক্রম; যা দেশে জেলা পর্যায়ের প্রথম কোন হাসপাতালে এ চিকিৎসাসেবার সংযুক্ত হল।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা-ইউএনএইচসিআর এর আর্থিক সহায়তায় হাসপাতালটিতে আধুনিক এ চিকিৎসাসেবার কার্যক্রম চালু হয়েছে বলে জানিয়েছেন হাসপাতালটির সংশ্লিষ্টরা।

শনিবার দুপুরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের সভা কক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ চিকিৎসাসেবার কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে।

চিকিৎসাসেবার আধুনিক এ ২ টি ইউনিট স্থাপনের সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এপ্রিল মাসের শুরুতে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের নেতৃত্বে ও জেলা প্রশাসনের সহায়তায় ইউএনএইচসিআরের আর্থিক অনুদানে ১০ শয্যার আইসিইউ ও ১০ শয্যার এইচডিইউ স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়। আর রোগীদের নিরবিচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ করা হয়েছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্টও। এতে ব্যয় হয়েছে ৩৫ কোটি টাকার বেশী। এছাড়া হাসপাতালে চালু হওয়া এ ২ টি ইউনিটের নিযুক্ত চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্য কর্মিদের বেতন-ভাতাসহ অন্যান্য আর্থিক ব্যয়ভারও বহন করবে ইউএনএইচসিআর।

কক্সবাজারের সাধারণ মানুষ ও রোহিঙ্গাদের চিকিৎসাসেবায় এগিয়ে আসায় ইউএনএইচসিআরকে ধন্যবাদ জানিয়ে কক্সবাজার সদর আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, কক্সবাজারবাসীর স্বপ্ন এ আইসিইউ স্বাস্থ্যখাতে সর্বোচ্চমানের চিকিৎসা সহায়তা ও সেবা নিশ্চিত করবে। কক্সবাজারের মানুষকে এ সেবা নিতে আর ঢাকা-চট্টগ্রামসহ অন্য কোথাও যেতে হবে না। সেই সঙ্গে কক্সবাজারে বেড়াতে আসা পর্যটক ও রোহিঙ্গাসহ এখানে কর্মরত দেশি-বিদেশি বিভিন্ন সংস্থার কর্মিরা এ সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারবে।

কক্সবাজারে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলছে উল্লেখ করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা: মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বলেন, কোভিড-১৯ আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য বর্তমানে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫০ শয্যার, চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৫০ শয্যার এবং উখিয়ায় রোহিঙ্গা ক্যাম্প সংলগ্ন স্থাপিত কোভিড-১৯ ডেডিকেটেড হাসপাতালে ১৪৪ শয্যার আইসোলেশন সেন্টার চালু রয়েছে। এতে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের সর্বোচ্চ চিকিৎসা ব্যবস্থা সিলিন্ডার অক্সিজেন। এসব আইসোলেশন সেন্টারগুলোতে আইসিইউ বা ভেন্টিলেটরের কোন ব্যবস্থা নেই। করোনা আক্রান্ত সংকটাপন্ন রোগীদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ছুটতে হত জেলা সদর হাসপাতাল থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূরের চট্টগ্রামসহ রাজধানী ঢাকায়।

এখন কক্সবাজার সদর হাসপাতালে চিকিৎসার আধুনিক সেবার কার্যক্রম চালু হওয়ায় করোনাসহ অন্য সংকটাপন্ন রোগীদের আর কোথাও দৌঁড়াতে হবে না বলে মন্তব্য করেন হাসপাতালটির এ তত্ত্বাবধায়ক।

মহিউদ্দিন বলেন, কক্সবাজারে যখন করোনা আক্রান্ত রোগী বাড়ছে তখন মানবিক কার্যক্রমে জড়িত ইউএনএইচসিআরসহ অন্য কয়েকটি সংস্থা বাংলাদেশি নাগরিক এবং রোহিঙ্গা জনগোষ্টির মানুষের চিকিৎসাসেবার সক্ষমতা বাড়তে এগিয়ে এসেছে।

এটি অত্যন্ত আনন্দদায়ক বলে মন্তব্য করে হাসপাতালটির তত্ত্বাবধায়ক বলেন, আধুনিক চিকিৎসাসেবার এ ২ টি ইউনিট স্থাপনের মধ্য দিয়ে দেশে জেলা পর্যায়ের প্রথম কোন হাসপাতালে আইসিইউ ব্যবস্থার চালু হল।

জুম কনফারেন্সের মাধ্যমে আয়োজিত জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মহেশখালী-কুতুবদিয়া আসনের সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মো. মাহবুব আলম তালুকদার, কক্সবাজার মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধ্যক্ষ প্রফেসর ডা: অনুপম বড়ুয়া, পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন, সিভিল সার্জন ডা: মো. মাহবুবুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, ইউএনএইচসিআর এর সিনিয়র অপারেশন কো-অর্ডিনেটর হিনাকো টোকি, বিএমএ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা: মাহবুবর রহমান ও কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু তাহের সহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2020

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!