এইমাত্র পাওয়া

x

আশরাফুলের বিশ্বকাপ দলে দুটি চমক

মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০১৯ | ১২:০১ অপরাহ্ণ | 296 বার

আশরাফুলের বিশ্বকাপ দলে দুটি চমক

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ দলে কোন ১৫ জন সুযোগ পাবেন? ক্রিকেট মহলে এটাই এখন কোটি টাকার প্রশ্ন। মঙ্গলবার দুপুরে দল ঘোষণা করা হবে। বিশ্বকাপ দল নিয়ে বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ আয়োজনে জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মোহাম্মদ আশরাফুলের বিশ্লেষণ।

টানা তিনটি বিশ্বকাপ (২০০৩, ২০০৭ ও ২০১১) খেলার অভিজ্ঞতায় ঋদ্ধ মোহাম্মদ আশরাফুল। ক্রিকেটের সেরা প্রতিযোগিতায় দুবার ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন তিনি। ক্রিকেট ইতিহাসের সর্বকনিষ্ঠ টেস্ট সেঞ্চুরিয়ানের বিশ্বকাপ দলে দুটি চমক। ইয়াসির আলী রাব্বি এবং ফরহাদ রেজাকে দলে রেখেছেন আশরাফুল। তবে তাসকিন আহমেদ, শফিউল ইসলাম ও ইমরুল কায়েসকে রাখেননি।

নিজের দল নিয়ে আশরাফুল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেছেন, ‘বিশ্বকাপ দলের বেশিরভাগ ক্রিকেটারই অটোমেটিক চয়েজ। সবাই কম-বেশি জানে কারা খেলবেন ইংল্যান্ডে। আমার বিশ্বকাপ দলটি ক্রিকেটীয় যুক্তি দিয়ে সাজানোর চেষ্টা করেছি। অনেকেরই হয়তো ভিন্নমত থাকবে। আমার দলে ইয়াসির আলী রাব্বিকে রাখবোই। পাশাপাশি পঞ্চম পেসার হিসেবে আমার পছন্দ ফরহাদ রেজা।’

ওপেনিংয়ে তামিমের সঙ্গে আশরাফুলের প্রথম পছন্দ লিটন। দুজনের ব্যাকআপ হিসেবে সৌম্যকে রেখেছেন তিনি। ইমরুলকে না রাখার বিষয়ে তার বক্তব্য, ‘ইমরুল জিম্বাবুয়ে সিরিজে দুটি সেঞ্চুরি ও একটি ৯০ রানের ইনিংস খেলেছিল। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুটি ম্যাচে পুরোপুরি ব্যর্থ ছিল। সাম্প্রতিক ফর্মের সঙ্গে মানসিকতা মিলিয়ে আমি ইমরুলকে দলে রাখিনি।’

আশরাফুলের বিশ্বকাপ দলে আছেন ইয়াসির আলীফর্মের কারণে ইমরুল বাদ পড়লে সৌম্য কেন নয়? আশরাফুলের ব্যাখ্যা, ‘সৌম্য হয়তো ফর্মে নেই। তবে সে নিউজিল্যান্ড সফরে বড় ইনিংস খেলতে না পারলেও শুরুটা ভালোই করেছিল। ২০১৫ বিশ্বকাপে সৌম্য দুর্দান্ত খেলেছিল। সাহস এবং বাউন্সি উইকেটে খেলার দক্ষতার কারণে তামিম-লিটনের ব্যাকআপ হিসেবে আমি সৌম্যকেই রাখবো।’

নিউজিল্যান্ডে তিনটি ওয়ানডেতেই ব্যর্থ হয়েছেন লিটন। তিন ম্যাচে তার রান ছিল ১, ১ ‍ও ১। গত সেপ্টেম্বরে ভারতের বিপক্ষে এশিয়া কাপ ফাইনালে অবশ্য দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। আশরাফুলের মতে, নিজের দিনে লিটন যে কোনও বোলিং আক্রমণকে ছিন্নভিন্ন করে দিতে সক্ষম, ‘লিটন যেদিন খেলে সেদিন একাই প্রতিপক্ষকে ডমিনেট করে। সেজন্য ওপেনিংয়ে তামিমের সঙ্গে মাশরাফির প্রথম পছন্দ লিটন। আমিও মনে করি, বিশ্বকাপের দলে লিটনের থাকা উচিত।’

আশরাফুলের বিশ্বকাপ দলে মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত সুযোগ পাননি। বরং বিপিএলে চিটাগং ভাইকিংস সতীর্থ ইয়াসির আলীকে দলে রাখছেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক, ‘মিডল অর্ডার কিংবা লোয়ার মিডল অর্ডারে খুবই ভাল পারফর্মার ইয়াসির আলী। সাম্প্রতিক সময়ে সব জায়গায় দুর্দান্ত পারফর্ম করেছেন তিনি। অনূর্ধ্ব-২৩ দলের হয়ে পাকিস্তান সফরেও ভালো ব্যাট করেছেন। এ ধরনের টুর্নামেন্টে ইয়াসিরের মতো খেলোয়াড় প্রভাব ফেলতে পারে।’

মোসাদ্দেকের চেয়ে অভিজ্ঞতায় পিছিয়ে থাকলেও ইয়াসিরই আশরাফুলের পছন্দ, ‘ইয়াসির একেবারে নতুন ছেলে না। অনেকদিন ধরে ক্রিকেট খেলছেন। বড় পর্যায়ের ক্রিকেটে নিজেকে প্রমাণ করার খিদে আছে তার ব্যাটে। মোসাদ্দেক হয়তো ভালোই খেলছেন, কিন্তু আমি ইয়াসিরকেই এগিয়ে রাখবো।’

আশরাফুল বিশ্বকাপ দলে রেখেছেন ফরহাদ রেজাকে১৫ জনের দলে ৬ জন বোলার রেখেছেন আশরাফুল। ৫ জন পেসারের পাশাপাশি স্পিনার হিসেবে তিনি রেখেছেন মেহেদী হাসান মিরাজকে। বিশেষজ্ঞ পেসার হিসেবে অভিজ্ঞ মাশরাফির সঙ্গে আছেন রুবেল হোসেন ও মোস্তাফিজুর রহমান। শফিউল কিংবা তাসকিন সুযোগ পাননি তার দলে। বরং পেস বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে সাইফউদ্দিন ও ফরহাদ রেজাকে রেখেছেন।

এ বিষয়ে আশরাফুলের ব্যাখ্যা, ‘বিপিএলে ইনজুরিতে পড়ে রিহ্যাবের মধ্যে আছেন তাসকিন। এখনও সম্পূর্ণ সুস্থ নন তিনি। এ কারণে তাকে বিশ্বকাপ দলে রাখতে পারছি না। শফিউলকে হয়তো রাখা যেত। তবে লিগের শুরুতে ভালো বল করলেও এ মুহূর্তে সেরা ছন্দে নেই তিনি। বরং ফরহাদ রেজাকে রাখতে পারি। ইয়াসিরের মতোই ঘরোয়া ক্রিকেটের সব ফরম্যাটে ধারাবাহিকভাবে ভালো খেলছেন ফরহাদ। তাছাড়া আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তার পরিচিত জায়গা। সাইফউদ্দিনও নিয়মিত ভালো খেলছেন। বিশ্বকাপ দলে তিনি আমার অটোমেটিক চয়েজ।’

আশরাফুলের বিশ্বকাপ দল:

মাশরাফি বিন মুর্তজা, তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, সাব্বির রহমান, ইয়াসির আলী, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মেহেদী হাসান মিরাজ ও ফরহাদ রেজা।

দৈনিক দৈনন্দিন এ প্রকাশিত কোন ছবি,সংবাদ,তথ্য,অডিও,ভিডিও কপিরাইট আইনে অনুমতি ব্যতিরেখে ব্যবহার করা যাবে না ।

Copyright @ 2019

Development by: webnewsdesign.com

error: Content is protected !!